চাঁপাইনবাবগঞ্জ | মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ info@mohanonda24.com +৮৮ ০১৬৮২ ৫৬ ১০ ২৮, +৮৮ ০১৬১১ ০২ ৯৯ ৩৩
ঈদ মুসলিম জাতির একটি অনন্য সভ্যতার প্রতীক।

পবিত্র ঈদুল ফিতর সুস্নিগ্ধ প্রীতিময় মিলন উৎসব।

এ.ক/স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত: ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১৯:৩৮

এ.ক/স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশিত: ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১৯:৩৮

সংগৃহিত ছবি

ঈদ মানে আনন্দ,ঈদ মানেই খুশি। ঈদ বাংলাদেশের জাতীয় উৎসব। আবহমান কাল ধরেই এই জনপদে ঈদ উদযাপন হয়ে আসছে। ঈদ মুসলিম জাতির একটি অনন্য সভ্যতার প্রতীক। তবে পৃথিবীর সকল জাতিরই স্ব-স্ব আনন্দ উৎসবের দিন আছে। ঈদ এলে মুসলিম উম্মাহর মধ্যে সঞ্চারিত হয় ভ্রাত্রীত্ববোধ,সহমর্মিতা, সহানুভূতি এবং একজনের দুঃখ দারিদ্র্য অন্য আরেকজনের অংশীদার হওয়ার অনুভূতি ও আকুতি।

ঈদ একটি নির্মল আনন্দের উৎসবের দিন।সারা বিশ্বের দেড়'শ কোটি মুসলমানদের হৃদয় জুড়ে ঈদ আসে প্রতি বছর। ঈদের আনন্দ অনুভব করে ইসলামী সমাজের মুসলিম উম্মাহর প্রতিটি সদস্য। পবিত্র ঈদুল ফিতর রমাদানের মাস ব্যাপী ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা সিয়াম সাধনায় নিয়োজিত। উঁচু-নিচু ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে আত্মসংযম লোভ-লালসা দমন দুঃখ কষ্ট লাঘব ও ধনী-গরীব বিত্তবান ও সাদাকালো সকল মুসলমানদের মাঝে ঈদের আনন্দ বিরাজ করে।

পবিত্র মাহে রমাদানের রোজা নামক পরীক্ষা শৃঙ্খলাময় জীবনযাপন শেষে মুসলিম উম্মাহর ঘরে ঈদুল ফিতরের হাস্যস্নিগ্ধ আগমন ঘটে। যা দীর্ঘ একটি মাস সিয়াম পালনে আনন্দ ও অনাবিল পরিতৃপ্তি নিয়ে মুসলিম জাতির ঈদ পালন। চারিদিকে ভরে যায় আনন্দ ও কোলাহলে ভ্রাতৃত্ব ও প্রেমের সৌরভ বিতরণী ইবাদত কেন্দ্রিক এক প্রবিত্র আমেজ। তাছাড়া শ্রেণী বৈষম্য বিবর্জিত পঙ্কিলতা অশালীনতামুক্ত সুনির্মল আনন্দ উপভোগ করে পবিত্র ঈদুল ফিতরের পূর্ণময় দিবসে মুসলিম জাতি। রমাদানের রোজা গুনাহ গুলোকে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে শেষ করে দেই,সিয়াম সাধনায় গুনাহ মাফ করা হয় পবিত্র মাহে রমাদানে।মাস ভরে সিয়াম পালনের পরই আছে আনন্দ ঘনমুহূর্ত দিবস।

পবিত্র ঈদুল ফিতরে ঈদের খুশি বাড়িয়ে তুলতে বিত্তবানদের পাশাপাশি নিম্ন আয়ের অসহায় গরিব দুঃখী মানুষ গুলোকে এক শ্রেণীর ব্যবসায়ী মহলের কারণে বেগপেতে হয় ঈদের বাজার সদাই করতে।রোজার মাসে বেশি মুনাফা লুটে নেওয়ার,ভেজাল মিশ্রিত পণ্য বিক্রি,ফ্যাশন মডেলের লোভনীয় বিজ্ঞাপন দেখে নামী-দামী কাপড়-চোপড় কেনার অসাধু আগ্রহ সৃষ্টি করা,দারিদ্র ইয়াতিম অসহায় মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা চিন্তা না করে ঈদ সামগ্রী থেকে শুরু করে যেন রক্ত পিপাসু এক শ্রেণীর ব্যবসায়ী।এতে করে সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে অসাধু মহল ঈদের আনন্দ করে সত্যিই'তবে ইসলামের দৃষ্টিতে তারা হারাই সর্বশক্তিমানের কাছ থেকে সরাসরি পুরস্কার লাভের অতি দুর্লভ সুযোগ।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: