ঢাকা সোমবার, ২৫শে জানুয়ারী ২০২১, ১২ই মাঘ ১৪২৭


এক মসজিদে নামাজ পড়েন ভারত-বাংলাদেশের মানুষ


প্রকাশিত:
৪ জানুয়ারী ২০২১ ২২:৩৮

আপডেট:
৪ জানুয়ারী ২০২১ ২২:৪১

নিউজ ডেস্কঃ  ভারত ও বাংলাদেশের মানুষের সৌহার্দ্য, ভ্রাতৃত্ব ও সম্প্রীতির সেতুবন্ধন হয়ে ব্রিটিশ আমল থেকে দাঁড়িয়ে আছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশজানী ঝাকুয়াটারী জামে মসজিদ।

২০০ বছর ধরে এই মসজিদটি দুই বাংলার মানুষের মধ্যে সেতুবন্ধনের অনন্য প্রতীক। মসজিদটি কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাথরডুবি ইউনিয়নের বাঁশজানি সীমান্তে অবস্থিত।

"দুই বাংলার এক মসজিদ" নামে পরিচিত এই মসজিদটির বর্তমান অবস্থা জরাজীর্ণ। বাংলাদেশ ও ভারত সীমানার আন্তর্জাতিক মেইন পিলার ৯৭৮-এর সাব পিলার ৯ এসের পাশে এই মসজিদের অবস্থান। এর উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার সাহেবগঞ্জ থানার ঝাকুয়াটারী গ্রাম, দক্ষিণে কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাথরডুবি ইউনিয়নের বাঁশজানি গ্রাম।

দুই দেশের মানুষের একটাই দাবি, আইনি জটিলতা কাটিয়ে ঐতিহাসিক এই মসজিদটির একটি স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণ করা হোক। দুই সীমান্তের শূন্যরেখায় বাংলাদেশের ভূখণ্ডে নির্মিত মসজিদের নাম "ঝাকুয়াটারী সীমান্ত জামে মসজিদ"। বৃটিশ আমল থেকেই মসজিদটি দাঁড়িয়ে আছে মুসলিম সম্প্রীতির প্রতীক হয়ে।

১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশ বিভক্ত হলেও গ্রামটির উত্তর অংশ ভারতের ও দক্ষিণ অংশ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থেকে যায়। ভারতীয় অংশের নাম হয় ‘ঝাকুয়াটারী’, আর বাংলাদেশের অংশে নামকরণ হয় ‘বাঁশজানি গ্রাম’। পরবর্তী সময়ে ভারত কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করলে ভারতের অংশটি বেড়ার বাইরে পড়ে যায়।

গ্রামটি আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার দিয়ে দুটি দেশে বিভক্ত হলেও বিভক্ত হয়নি তাদের সামাজিক বন্ধন। প্রতিবেশীর মতোই তাদের বসবাস। ভিন্ন সংস্কৃতি ভিন্ন দেশ হওয়া সত্ত্বেও তারা একই সমাজের বাসিন্দা, একই মসজিদের মুসল্লি। অপার সম্ভাবনার এই মসজিদটির সংস্কার, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন হলে এটি হতে পারে ধর্মীয় পর্যটন কেন্দ্র বলছেন সুধীজন।

স্থানীয় বাংলাদেশি এরশাদ আলী বলেন, এই জায়গারটির নাম হলো দক্ষিণ বাঁশজানী। গ্রামটির নাম হলো ঝাকুয়াটারী। ১৯৪৭ সালের পূর্বে দেশভাগের আগে আমরা ভারত ও বাংলাদেশিরা এই জায়গাটিতে একত্রে বসবাস করতাম। দেশভাগের পর এই এলাকাটি দুই ভাগে বিভক্ত হয়েছে। ভারতের ছোট গাড়ালঝোড়া গ্রামের কিছু অংশ বাংলাদেশের ভূ-খণ্ডে পড়ায় সেখানকার বাসিন্দারা বাংলাদেশের নাগরিক ও বাঁশজানী গ্রামের কিছু অংশ ভারতের ভূ-খণ্ডে পড়ায় সেখানকার বাসিন্দারা ভারতের নাগরিক। এপার বাংলা ও ওপার বাংলা মিলেই ঝাকুয়াটারী এলাকা।

তিনি বলেন, আমরা আমাদের পূর্ব পুরুষরা থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত দুই বাংলার মানুষ মিলেমিশে বসবাস করে আসছি। আমরা দুই দেশের নাগরিকরা একসঙ্গে এই মসজিদটিতে নামাজ পড়ে আসছি। আমরা বিপদ আপদে একে অপরের দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেই। আমাদের মাঝে যুগের পর যুগ ধরে ভালোবাসার সেতুবন্ধন চলমান রয়েছে। আমরা এই সেতুবন্ধন অব্যাহত রাখব ইনশাআল্লাহ।

স্থানীয় অপর এক বাংলাদেশি সোহেল রানা সাজু বলেন, ভারত ও বাংলা আমাদের একই সমাজ। এই মসজিদটি ব্রিটিশ আমলে প্রতিষ্ঠিত। যুগ যুগ ধরে বাপ-দাদারা নামাজ পড়ে আসছেন। মসজিদটিতে ধর্মীয় কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে দুই দেশের মানুষই মিলেমিশে চাঁদা প্রদান করি। এভাবেই আমরা মিলেমিশে চলছি।

তবে আক্ষেপের কথাও বলেন এই বাংলাদেশি। তিনি জানান, মসজিদটির উন্নয়ন করার সামর্থ্য আমাদের। অনেকেই এখানে আসেন, ছবি তোলেন, ভিডিও করে নিয়ে যান। কিন্তু মসজিদটির উন্নয়নে কেউ সহযোগিতা করেন না।

স্থানীয় ভারতীয় রাহুল আমিন বলেন, দক্ষিণ বাঁশজানী ঝাকুয়াটারী মসজিদটি ১৮২০ সালে প্রতিষ্ঠিত। মসজিদটির প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আমাদের পূর্ব পুরুষরা নামাজ আদায় করেছেন। বাপ-দাদারাসহ আমরাও নামাজ আদায় করে আসছি। ভারতীয় ও বাংলাদেশি বৃদ্ধ, যুবক ও ছেলে—সবাই। এখন পর্যন্ত আমাদের মাঝে কোনো ধরনের আইনি বাধা আসেনি।

ঝাকুয়াটারী মসজিদের ইমাম আবুবকর সিদ্দিক। ১৯৭৪ সাল থেকে মসজিদটিতে ইমামতি করে আসছেন। তিনি বলেন, দীর্ঘ ৪৬ বছর ধরে এই মসজিদের দায়িত্ব পালন করে আসছি। ব্রিটিশ আমল থেকে এই মসজিদটি চলমান রয়েছে। মসজিদটির শুরু থেকে আজ পর্যন্ত স্থানীয় বাংলাদেশি ও ভারতীয়দের মাঝে কোনো প্রকারের দ্বন্দ্ব বা ঝগড়া-বিবাদ হয়নি। আমরা স্থানীয় ভারতীয় ও বাংলাদেশিরা মিলেমিশে এই মসজিদে নামাজ আদায় করি।

আবুবকর সিদ্দিক বলেন, আমাদের এখানে সবাই গরিব। সবার সহযোগিতায় মসজিদটি পরিচালিত হয়ে আসছে। অন্য এলাকার মসজিদের উন্নয়ন হলেও আমরা ছোট জনগোষ্ঠী হওয়ায় মসজিদটির উন্নয়ন করতে পারছি না। আমরা স্থানীয় ভারতীয় ও বাংলাদেশিরা মিলেমিশে থেকে এই মসজিদে নামাজ আদায় করে খুবই আনন্দবোধ করি।

ভূরুঙ্গামারী উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুন্নবী চৌধুরী খোকন বলেন, ঐতিহ্যবাহী এই মসজিদটির কারণে দুই দেশের মানুষের মাঝে সেতুবন্ধন চলমান রয়েছে। এখানে কীভাবে দর্শনার্থীদের আকর্ষণ আরও বাড়ানো যায়, সে বিষয়ে আমরা চিন্তাভাবনা করছি। এটি সরকারের নজরে আনারও চেষ্টা করছি।

১৯৪৭ সাল থেকে দুই দেশের মুসল্লিরা মসজিদটিতে নামাজ আদায় করে আসছেন। এখন পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলার কোনো অবনতি ঘটেনি বলে জানান চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, আইনিভাবে এবং উভয় দেশের সম্মতি সাপেক্ষে যদি মসজিদটির উন্নয়ন মূলক কাজ হয়, তাহলে স্থানটিতে অনেক দশর্নাথীর আমন ঘটবে। দর্শনার্থীরা এসে দেখবেন, কীভাবে দুই দেশের মানুষ একসঙ্গে মিলিত হয়ে নামাজ আদায় করে আসছেন।

কুড়িগ্রামের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) ও উত্তরবঙ্গ জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন বলেন, দুই দেশের এক মসজিদ। এটি সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। এটি উভয় দেশের জন্য হতে পারে ধর্মীয় পর্যটন।

ছোট্ট ও জীর্ণ ঝাকুয়াটারী মসজিদটি আন্তর্জাতিক বন্ধুত্বের চমৎকার একটি উঠান। এলাকাটিতে গেলে বোঝার উপায় নেই যে, কোন ঘরটি ভারতের আর কোনটা বাংলাদেশের। সেখানে দুই দেশের মানুষজন নামাজ পড়েন। এ ক্ষেত্রে দু-দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বাধা হয়নি। এ এক চমৎকার সম্প্রীতি।

অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন বলেন, উভয় দেশের নাগরিকরা সেখানে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। কেউ যেন সেখানে আইন ভঙ্গ না করেন সেদিকে উভয় দেশের স্থানীয়রা যথেষ্ট সচেতন ও সতর্ক।

মসজিদটি উভয় দেশের জন্য একটি ধর্মীয় ও পর্যটনের কেন্দ্র হিসেবে স্বীকৃতি পেতে পারে বলে মনে করেন এই সরকারি কৌঁসুলি। এ বিষয়ে তিনি বলেন, এজন্য এখানে একটি প্রসারিত পাকা সড়ক দরকার। স্থানীয় ও জেলা প্রশাসন মসজিদটিকে দৃষ্টিনন্দন করতে পারেন। উভয় দেশ একত্রেও এটি যৌথভাবে নির্মাণ করে আন্তর্জাতিক নজির সৃষ্টি করতে পারেন। তবে যাতে নিয়মের নামে সৌহার্দ্যের মসজিদটিতে মুসল্লিরা বিপদগ্রস্থ না হন সেটি যেমন নজর রাখার পরামর্শ এই আইনজীবীর।

কুড়িগ্রাম-২২ ব্যাটালিয়ন বিজিবির অধিনায়ক মোহাম্মদ জামাল হোসেন বলেন, ওই স্থানটিতে ঐতিহ্যবাহী পুরাতন একটি মসজিদ রয়েছে। এখন পর্যন্ত সেখান থেকে বিশৃঙ্খলার কোনো খবর আমার কাছে আসেনি। মসজিদটির অতীত ইতিহাস হিসেবে সেখানে বাধা দেয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। প্রকৃতপক্ষে ওদের পক্ষ থেকে কিংবা আমাদের পক্ষ থেকে কোনো প্রতিবাদ থাকে না।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: