ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ই আশ্বিন ১৪২৭


জনস্বার্থে কাজ করতে গিয়ে নাচোল ইউএনও- সার্ভেয়ারসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা


প্রকাশিত:
১২ আগস্ট ২০২০ ০০:১৮

আপডেট:
১২ আগস্ট ২০২০ ০০:২৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: জনস্বার্থে কাজ করতে গিয়ে নাচোলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও সাবিহা সুলতানা, সার্ভেয়ারসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। (মামলা নম্বর ০১/২০)।
 
জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে উপজেলার নাচোল ইউপির ৯নং ওয়ার্ডের গনইর গ্রামবাসীর পক্ষে ৫১জন স্বাক্ষরিত একটি আবেদন ও তদন্তের প্রেক্ষিতে জুলাই মাসের ২০ তারিখে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিট্রেট সাবিহা সুলতানার এর নির্দেশে নাচোল এসিল্যান্ড অফিসের সার্ভেয়ারসহ কয়েকজনের উপস্থিতিতে সরকারি রাস্তার উপরে থাকা (যাহা গনইর মোজার ১৮৭ দাগের রেকর্ডীয় শ্রেণি ডহর যার পরিমাণ ০.১৯ একর। 
 
যা ১ নং খতিয়ানে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ডেপুটি কমিশনার রাজশাহী নামে রেকর্ড রয়েছে) কয়েকটি মাটির বাড়ির আংশিক ভেঙ্গে জনগণ ও যানবাহন চলাচলের উপযোগী করেন।
 
অভিযোগ লিপির মাধ্যমে আরও জানা গেছে, ২০১৯ সালের ১৯ নভেম্বর গনইর গ্রামবাসীর পক্ষে আব্দুল খালেক, ইউসুফ আলী, ইয়াসিন আলী, মনিরুল ইসলামসহ ৫১জন স্বাক্ষরিত একটি আবেদনপত্র নাচোল উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর দিলে তিনি বিয়য়টি তদন্ত করার জন্য ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকতা মো. রফিকুল আলম কে দায়িত্ব দেন। 
 
তদন্ত রিপোর্টের প্রেক্ষিতে গত জুলাই মাসের ২০ তারিখ জনস্বার্থে সরকারি রাস্তার মাঝে থাকা একই গ্রামের মৃত গোল মোহাম্মদের ছেলে মুকুল, মতিন ও মনজুর এর মাটির দেয়ালের আংশিক ভেঙ্গে ফেলা হয়। 
 
এরই প্রেক্ষিতে একটি মহল উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে উনার ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করার লক্ষে সাংবাদিককে মিথ্যা তথ্য দিয়ে প্রতিবেদন করিয়েছে। যা ভাবমুর্তি ও মানহানির সামিল। এতেই তারা ক্ষান্ত নন, প্রতক্ষদর্শীর মাধ্যমে জানা যায়, তারা নিজেরা আরো কিছু অংশ ভেঙ্গে দিয়ে পরে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সার্ভেয়র মো. মাহমুদুল হাসানসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালতে ক্ষতিপূরণ চেয়ে ও মামলা দায়ের করেছেন। এতে করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ উক্ত সরকারি কর্মচারীদের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে বলে ইউএনও জানান।
 
জানা গেছে, বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা নাচোল উপজেলা বাসীর জন্য আর্শিবাদ। তিনি যোগদানের পর থেকে এলাকার ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়েছে। আইন শৃঙ্খলার উন্নয়ন, রাস্তা-ঘাট, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উর্ধ্বতন প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করে উন্নয়ন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।
 
সম্প্রতি তিনি ভালো কাজের স্কৃতিস্বরুপ জেলা প্রশাসক এর নিকট থেকে পুরস্কৃত হয়েছেন। জেলার ৫টি উপজেলার মধ্যে তিনি শ্রেষ্ঠত্বের পুরস্কার পান। যা নাচোলবাসীর অত্যান্ত গর্বের বিষয়। এছাড়া বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে তিনি দিনরাত কর্মহীনদের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করে ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছেন। 
 
মামলার বাদী মো. মুকুলের  সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমি এত দিন থেকে জমিটি আমি দখল করে আছি, কিন্তু হঠাৎ কেন ভাঙ্গা হল, এ জন্য আদালতের সরনাপন্ন হয়েছি ।
 
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা জানান, গ্রামবাসীর আবেদন ও তদন্তের প্রেক্ষিতে জনস্বার্থে সরকারি রাস্তার ওপরে থাকা ধানের গাড়ি চলাচলের উপযোগী করে জনগণেরর জন্য আংশিক ১টা  মাটির দেওয়াল ও একটি ঘরের আংশিক (পরিত্যক্ত) ভাঙ্গা হয়েছে। সরকার জনস্বার্থে অথবা সরকারের প্রয়োজনে সরকারি জায়গায় থাকা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে পারে।
 
এ ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. জাকিউল বলেন, এটা আমাদের নিয়মিত কার্যক্রম এবং জনস্বার্থে এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। এ ব্যাপারে আর কিছু বলার নাই।
 
 
মহানন্দা২৪/কপোত নবী


আপনার মূল্যবান মতামত দিন: