ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর ২০২২, ২৪শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯


জামায়াত দাঁড়ালো হিন্দু পরিবারের পাশে


প্রকাশিত:
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৬:৪৬

আপডেট:
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৬:৫৭

প্রতি পরিবারকে ৩০ হাজার টাকা করে সহায়তা

নিউজ ডেস্ক: পঞ্চগড়ে মহালয়ার যাত্রাপথে করোতোয়া নদীতে নৌকা ডুবিতে নিহতদের পরিবারকে সমবেদনা, সান্ত্বনা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। প্রতি পরিবারকে ৩০ হাজার টাকা করে সহায়তা দিয়েছে জামায়াত।
বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর ) সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার মাড়েয়া ইউনিয়নে করতোয়া নদীতে নৌকাডুবিতে প্রাণহানির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ডা. শফিকুর রহমান।

এ সময় তিনি নিহত ৭১ জনের পরিবার ও নিখোঁজ ৫টি পরিবারের সদস্যদের খোঁজ-খবর নেন ও নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। সঙ্গে ছিলেন জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও রংপুর-দিনাজপুর অঞ্চলের পরিচালক মাওলানা আবদুল হালিম। ও পঞ্চগড় জেলা আমীর জনাব ইকবাল হোসাইন।

এ সময় তিনি নিহতদের পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা ও সান্ত্বনা প্রদান করেন।

আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমান বলেন, “আমরা আপনাদের কাছে মায়ার টানে চলে এসেছি। আপনজন হারানোর যে বেদনা, আমরা তা কোনোভাবেই পূরণ করতে পারব না। কিন্তু আমরা আপনাদের বিপদ-আপদে, সুখে-দুখে পাশে থাকার চেষ্টা করব, ইনশাআল্লাহ। আমীরে জামায়াত এ সমস্ত অসহায় পরিবারের সদস্যদের খোঁজ-খবর রাখার জন্য স্থানীয় সংগঠনের দায়িত্বশীলদের প্রতি নির্দেশ প্রদান করেন।

তিনি আরো বলেন, সব কিছুর উপরে মানবতা। কিছু উপহার নিয়ে আমরা আপনাদের সুখ-দুখের ভাগী হতে এসেছি। এটা অতি সামান্য, আমাদের পক্ষ থেকে আপনাদের জন্য সান্ত্বনা। আমাদের সামান্য সান্ত্বনার পাশাপাশি যদি আপনাদের অল্প হলেও উপকার হয়, তাহলে এটা আল্লাহর কাছে আমাদের জন্য অনেক বড় পাওনা। আমরা দুর্ঘটনার খবর শুনে এখানে দয়া দেখাতে আসিনি। আমরা আপনাদের বন্ধু হিসেবে ছুটে এসেছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা আপনাদের কষ্ট ভাগাভাগী করে নিতে এসেছি। এ দুঃখ-কষ্ট আপনাদের একার নয়। এ কষ্ট আমাদের সকলের। এ কষ্ট ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বাংলাদেশের সকল মানুষের। আমাদের একার পক্ষে সব মানুষের কষ্ট লাঘব করা সম্ভব নয়। তাই আমরা চাই, বিপদগ্রস্ত মানুষের পাশে সবাই এসে দাঁড়াক। সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং সমাজের বিত্তবানদের উচিত দুস্থ অসহায় মানুষের সেবায় এগিয়ে আসা।”
মাওলানা আবদুল হালিম বলেন, “জামায়াতে ইসলামী সবার জন্য কাজ করে। আপনাদের ঘটনার খবর শুনে আমাদের সংগঠনের আমীর ডা. শফিকুর রহমান হৃদয়ে বেদনা অনুভব করছিলেন এবং আপনাদের সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য ছটফট করছিলেন। তিনি প্রতিটা মুহূর্তে আপনাদের খোঁজ-খবর নিচ্ছিলেন। আমরা স্থানীয় দায়িত্বশীলদের সাথে যোগাযোগ করে আজকে আপনাদের সাথে সাক্ষাত করতে এসেছি।”

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল খালেক, ঠাকুরগাঁও জেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা আব্দুল হাকিম, পঞ্চগড় জজকোর্টের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট আজিজুল ইসলাম ও বোদা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ সফিউল্লাহ সফি, নীলফামারী জেলা জামায়াতের মজলিসে শূরা ও কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুল কাদিম, পঞ্চগড় জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি মোঃ দেলোয়ার হোসেন ও ঠাকুরগাঁও জেলা সেক্রেটারি মোঃ আলমগীর হোসাইন, ইসলামী ছাত্রশিবিরের পঞ্চগড় জেলা সভাপতি মোঃ আল মামুন এবং পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার স্থানীয় জামায়াত নেতৃবৃন্দ।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: